টিম ট্র্যাকার

দাবার ছকের মতোই ব্যবসায় প্রতিটি পদক্ষেপই গুরুত্বপূর্ণ, মূল্যবার প্রতিটি মুহূর্ত। জয় ছিনিয়ে আনার জন্য প্রয়োজন প্রতিটি মুহূর্তে প্রতিটি ঘুঁটির অবস্থান হাতের মুঠোয় রাখা। ঠিক যেমনটি প্রয়োজন ব্যবসায়িক কার্যক্রমে। গ্রামীণফোন টিম ট্র্যাকারের মাধ্যমে আপনি প্রতিটি মুহূর্তে ওয়াকিবহাল থাকবেন আপনার সেনানীদের অবস্থানের, আপনার কর্মীদলের; তাদের এগিয়ে নিয়ে যাবেন সাফল্যের দিকে।

ব্যবসায়িক কার্যক্রমের এক নতুন ভ্যালু-অ্যাডেড সমাধান টিম ট্র্যাকার। এই সার্ভিসের মাধ্যমে মাঠকর্মীনির্ভর ব্যবসায় আসবে গতি এবং দক্ষতা। জাতীয় ও আঞ্চলিক সেলস ম্যানেজার, এরিয়া ম্যানেজার ও ডিস্ট্রিবিউটরের মতো ব্যবসায়ীদের জন্য নিজের কর্মীদের গতিবিধি নিজের আয়ত্ত্বে রাখা সবসময়ই ছিলো কষ্টসাধ্য। গ্রামীণফোন টিম ট্র্যাকার সার্ভিসের মাধ্যমে এখন তাই আপনি মুহূর্তেই জানতে পারবেন আপনার কর্মীদের অবস্থান, ডিজিটালি তাদের কাজ বুঝিয়ে দিতে পারবেন এবং ইলেকট্রনিক্যালি কাজের আপডেটও জানতে পারবেন। আপনার কর্মীসংখ্যা এক হাজারের ওপরে হলেও টিম ট্র্যাকার আপনার পাশে থাকবে সবসময়।

সার্ভিসটির বৈশিষ্ট্য:

  • মানচিত্রের মাধ্যমে কর্মীদের অবস্থান সাথে সাথেই জানতে পারবেন
  • এলাকাভিত্তিক কাজ ভাগ করে দিতে পারবেন এবং আগেভাগেই কাজ বুঝিয়ে দিতে পারবেন
  • মুহূর্তের মধ্যেই কাজ কতটা এগুলো, তা জানতে পারবেন
  • প্রাতিষ্ঠানিক গুরুত্ব অনুযায়ী কর্মীদের অবস্থান ও কাজের হিসাব জানিয়ে বিজনেস রিপোর্ট পাবেন

এই সার্ভিসটি ব্যবহারে আপনি যে সুবিধাগুলো পাচ্ছেন:

  • কাজের গতিবৃদ্ধি
  • প্ল্যানিং-এর সুবিধা এবং কর্মীদের ওপর নিয়ন্ত্রণ
  • কর্মীদের মাঝে কাজ সঠিকভাবে ভাগ করে দেয়া
  • বেশি মুনাফা

এই সার্ভিসের মাধ্যমে আপনার প্রতিষ্ঠান আরো দক্ষতা ও দ্রুততার সাথে কাজ করে বিক্রি বাড়াবে, সাথে সাথে নিশ্চিত করবে তাৎক্ষণিক গ্রাহকসেবা। এবং এসব সুবিধা আপনার ব্যবসাকে দেবে অন্য যেকোন প্রতিদ্বন্দ্বীর তুলনায় দ্রুত এগিয়ে যাবার ক্ষমতা।

এই সার্ভিসটি ব্যবহারের জন্য প্রতিষ্ঠানকে মাসিক ফি হিসেবে ৩০০ টাকা দিতে হবে। প্রতিটি ''টাস্ক অ্যাসাইন'' এসএমএস-এর জন্য ১ টাকা এবং ''টাস্ক আপডেট'' এসএমএস-এর জন্য ২ টাকা চার্জ প্রযোজ্য। ভলিউম পারচেজের ওপর নির্ভর করে প্রত্যেক প্রতিষ্ঠান ৫০% পর্যন্ত ডিসকাউন্ট উপভোগ করতে পারেন।

আগ্রহী বিজনেস সলিউশনস গ্রাহকরা তাঁদের নিজস্ব গ্রামীণফোন অ্যাকাউন্ট ম্যানেজারের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। অন্যান্য ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান নতুন সংযোগের জন্য কল করুন আমাদের বিজনেস হটলাইন 222 নম্বরে অথবা নিজের প্রতিষ্ঠানের পরিচিতিসহ ইমেইল করুন business.solutions@grameenphone.com ঠিকানায়।

প্রয়োজনীয় তথ্য:

১. টিম ট্র্যাকার কি?

গ্রামীণফোন টিম ট্র্যাকার ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠানের জন্য একটি এন্টারপ্রাইজ সলিউশন যা প্রতিষ্ঠানের মাঠকর্মীদের অবস্থান ও পরিস্থিতির তাৎক্ষণিক তথ্য দিয়ে ব্যবসায়িক কর্মকান্ডকে দেয় গতি এবং দক্ষতা। এই সার্ভিসের মাধ্যমে ওয়েবসাইটের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠান তার কর্মীদের অবস্থান জানতে পারে এবং ওয়েবসাইট ও এসএমএস-এর মাধ্যমে কাজের গতিকে ত্বরান্বিত করতে পারে। এই সার্ভিসটি এলবিএস টেকনোলজি ব্যবহার করে ডিজাইন করা হয়েছে যা গ্রামীণফোনের বিটিএস-এর অবস্থানের ওপর ভিত্তি করে তথ্য প্রদান করে।

২. এই সার্ভিসটি কাদের জন্য তৈরি করা হয়েছে?

এই সার্ভিসটি মূলত সেসব প্রতিষ্ঠানের জন্য যাদের প্রচুর কর্মী মাঠ পর্যায়ে কাজ করে, যেমন ফার্মাসিউটিকাল, এনজিও, ক্রেডিট কার্ড ও এসএমই লোন নিয়ে কাজ করা ব্যাংক ইত্যাদি।

৩. এই সার্ভিসটির মাধ্যমে প্রতিষ্ঠান কি ধরনের সুবিধা পাবে?

ওয়েব ও এসএমএসভিত্তিক এই সার্ভিসের মাধ্যমে ম্যানেজাররা তাঁদের কর্মীদের অবস্থান জানতে পারেন, কাজ বুঝিয়ে দিতে পারেন, কাজের অবস্থা জানতে পারেন মুহূর্তের মধ্যেই। ট্র্যাকিং ও কাজ বুঝিয়ে দেয়ার মাধ্যমে কাজ দ্রুত ও তুলনামূলকভাবে কম খরচে করা যায়। এর মাধ্যমে কাজ দ্রুত শেষ হয় এবং গ্রাহকসেবাও উন্নত হয়।

৪. টিম ট্র্যাকারের প্রধান বৈশিষ্ট্য ও সুবিধা কি?

জিপি টিম ট্র্যাকারের যেসব বৈশিষ্ট্য ও সুবিধা আছে, তা হলো:
  • রিয়েল টাইম ট্র্যাকিং: প্রতিদিন প্রতি মুহূর্তে কর্মীদের অবস্থান জানতে পারছেন। প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের জন্য ভিন্ন ও নির্দিষ্ট সময়সীমা নির্ধারণ করা যায়। প্রতিষ্ঠানের কাজের ওপর নির্ভর করে একটি কর্মসপ্তাহ নির্ধারণ করা যায় এবং কর্মীদের গোপনীয়তা রক্ষা করা যায়।
  • আনলিমিটেড পিওআই: প্রয়োজনের ওপর ভিত্তি করে প্রতিষ্ঠানটি আনলিমিটেড পিওআই উপভোগ করতে পারে যা প্রতিষ্ঠানকে যতটা সম্ভব পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে ট্র্যাকিং-এর সুবিধা দেয়। পিওআই (পয়েন্ট অফ ইন্টারেস্ট) এমন একটি স্থাপনা যা কর্মী ও পিওআই-এর মধ্যকার দূরত্ব নির্ধারণ করতে পারে। যেমন: একটি ফার্মাসিউটিকাল প্রতিষ্ঠান একটি এলাকার সব কটি ওষুধের দোকানকে পিওআই হিসেবে নির্ধারণ করতে পারে এবং জানতে পারে যে তার কর্মী এ মুহূর্তে কোন দোকানে কাজ করছে।
  • বৃহত্তম ও সূক্ষ্মতম ট্র্যাকিং এলাকা: দেশব্যাপী বৃহত্তম নেটওয়ার্কের কারণে গ্রামীণফোন নিশ্চিত করে ট্র্যাকিং-এর সবচেয়ে বড় এলাকা। আনলিমিটেড পিওআই এই প্রক্রিয়াকে করে সূক্ষ্মতম।
  • কাজের সুষ্ঠু বন্টন: ওয়েবের মাধ্যমে মালিক তার কর্মীকে কাজ বুঝিয়ে দিতে পারেন, যা কর্মী একটি অটো-জেনারেটেড সিরিয়াল নম্বরের সাথে মোবাইল ফোনে এসএমএস-এর মাধ্যমে জানতে পারবে।
  • কাজের আপডেট: একটি পোর্ট নম্বর ব্যবহার করে কর্মীরা এসএমএস-এর মাধ্যমে তাদের ম্যানেজারকে কাজের বর্তমান অবস্থা জানাতে পারে, যা সিস্টেমে অটোম্যাটিকালি আপডেট হয়ে ম্যানেজারের কাছে পৌঁছে যাবে। প্রয়োজনে ম্যানেজার ইন্টারনেট থেকেও কাজের আপডেট নিতে পারেন।
  • পদবী অনুযায়ী ক্ষমতা: এই সিস্টেমের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানে কর্মপদবী অনুযায়ী ট্র্যাকিং, কর্মব্যবস্থাপনা ও রিপোর্ট তৈরির ক্ষমতা থাকে।
  • লোকেশনের রিপোর্ট: প্রতিষ্ঠানটি যেকোন কর্মীর গত ৭ দিনের অবস্থানের রেকর্ড জানতে পারে।
  • কাজের অবস্থা অনুযায়ী রিপোর্ট: সিস্টেমটি যেকোন কর্মী কতটা কাজ করেছে, তা জানাতে পারে এবং কোন কাজ কি পরিমাণ হয়েছে, তাও জানাতে পারে।
  • সিস্টেমে সেল্ফ-কন্ট্রোল: সিস্টেম অ্যাডমিনিস্ট্রেটর সিস্টেমে পিওআই, রিপোর্ট তৈরি ইত্যাদি বিষয়ে নিয়মনীতি নির্ধারণ করে দিতে পারেন। পুরো সিস্টেমটি চালানোর ক্ষমতা প্রতিষ্ঠানটির হাতেই থেকে যায়।
  • বিরতির সময় বন্ধ: একজন কর্মী ছুটিতে গেলে বা সেদিনের মতো কাজ শেষ করলে সিস্টেমটি তাকে ট্র্যাক করা বন্ধ করে দিতে পারে।

৭. টিম ট্র্যাকারের মাধ্যমে কি সব কর্মীকে একবারে একসাথে একটি এসএমএস পাঠানো সম্ভব?

না। এই কাজটি শুধুমাত্র বিজনেস এসএমএস সার্ভিসটির মাধ্যমে করা সম্ভব।

৯. এই সিস্টেমটি কি বাসা থেকে ব্যবহার করা যায়?

হ্যাঁ, কম্পিউটারে ইন্টারনেট সংযোগ থাকলে অবশ্যই সম্ভব।

১১. কর্মীর অবস্থান জানার জন্য কি কোন বিশেষ ধরনের হ্যান্ডসেট প্রয়োজন হয়?

না। গ্রামীণফোনের SIM সহ যেকোন সুইচ অন করা হ্যান্ডসেট দিয়ে এ কাজটি করা যায়।

১২. কর্মীর হ্যান্ডসেট সুইচ অফ থাকলে কি তার অবস্থান জানা সম্ভব?

না। ফোন বন্ধ করার আগে কর্মীর শেষ অবস্থান জানা যাবে।

১৪. একটি বর্তমান অ্যাকাউন্টে কি একজন নতুন কর্মীকে যোগ করা যাবে?

হ্যাঁ। সেক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানকে গ্রামীণফোনকে জানাতে হবে যেন সেই কর্মীর MSISDN অ্যাক্টিভেট করা হয়।

১৫. সার্ভিসটি উপভোগ করার জন্য কি কি প্রয়োজন হবে?

  • টিম ট্র্যাকার সার্ভিস উপভোগের জন্য যা যা প্রয়োজন হবে, তা হলো:
  • প্রতিষ্ঠানটিকে ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনার সঠিক কাগজপত্রসহ হতে হবে।
  • একটি ফর্ম পূরণের মাধ্যমে সার্ভিসটি গ্রহণের জন্য গ্রামীণফোনের সাথে চুক্তি স্বাক্ষর করতে হবে।
  • কর্মীকে ট্র্যাক করার জন্য প্রতিষ্ঠানের অবশ্যই কর্মীর সম্মতি নিতে হবে।
  • MSISDN টি গ্রামীণফোনের হতে হবে।
  • MSISDN টিতে অবশ্যই প্রতিষ্ঠানটির বিজনেস সলিউশনস কোড থাকতে হবে।
  • প্রতিষ্ঠানটির অবশ্যই গ্রামীণফোনকে MSISDN তালিকা দিতে হবে।

১৭. সার্ভিসটি নেবার জন্য কার সাথে যোগাযোগ করতে হবে?

বর্তমান বিজনেস সলিউশনস গ্রাহক প্রতিষ্ঠানরা তাদের নিজস্ব কি অ্যাকাউন্ট ম্যানেজারের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

১৮. ব্যবহারকারীরা কিভাবে ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ডের মতো লগইন তথ্য পাবেন?

অ্যাক্টিভেশনের সময় গ্রামীণফোন কাস্টোমার অ্যাডমিন ইউজারকে (প্রতিষ্ঠানটিতে যিনি সিস্টেমটির দায়িত্বে থাকবেন) এসব তথ্য দিয়ে দেবে। কাস্টোমার অ্যাডমিন ইউজার অন্যান্য কর্মীদের কে কি করতে পারবেন এবং তাদের ইউজার নেম ও পাসওয়ার্ড ঠিক করে দেবেন।

১৯. সার্ভিসটি নেয়ার জন্য কত খরচ হবে?

প্রত্যেক কর্মী/MSISDN-এর রেজিস্ট্রেশনের জন্য ৩৫০ টাকা+ VAT দিতে হবে। প্রত্যেক কর্মী/ MSISDN -এর জন্য মাসিক সার্ভিস ফি হবে ৩০০ টাকা + VAT। তবে এক্ষেত্রে কি অ্যাকাউন্ট ম্যানেজার প্রতিষ্ঠানের সাথে আলাপ সাপেক্ষে এই মূল্য নির্ধারণ করবেন।

২০. ট্র্যাক করা কর্মীদের কি কোন চার্জ দিতে হবে?

না,প্রতিষ্ঠানকে একবারে চার্জ করা হবে। প্রত্যেক প্রতিষ্ঠানের জন্য একটি ভার্চুয়াল MSISDN থাকবে এবং সেই হিসেবে চার্জ করা হবে।

২২. প্রতিটি কাজ নির্ধারণ করে দেয়ার জন্য কত চার্জ হবে?

প্রতিটি এসএমএস-এর জন্য ১ টাকা + ১৫% ভ্যাট।

২৪. এই সিস্টেমে কি কি রিপোর্ট পাওয়া যায়?

মূলত যে রিপোর্টগুলো পাওয়া যায়, তা হলো:
  • এমপ্লয়ি টাস্ক রিপোর্ট
  • ট্র্যাক হিস্টোরি রিপোর্ট
  • এসএমএস হিস্টোরি রিপোর্ট

 

এই সেবা পেতে আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন

 

grameenphone